পনি যদি ল্যাপটপ অথবা ডেক্সটপ কেনার কথা ভাবেন এবং ইনটেল প্রসেসর না এএমডি প্রসেসর নেবেন এই ব্যাপারে দ্বিধার মধ্যে থাকেন। তবে আজকের পোস্টে আমি আপনাকে বলে দেবো যে, আপনার বাজেট এবং প্রয়োজন অনুসারে আপনার জন্য ইনটেল (Intel) উপযুক্ত হবে, না এএমডি (AMD) উপযুক্ত হবে?

আমার জানা মতে এই প্রশ্ন কম বেশি সকল ব্যাক্তির মনে উঠে আসে, যখনই সে ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ কেনার কথা ভাবে। বাকী সকল যন্ত্রাংশের নির্দিষ্টকরণ হয়তো সহজেই করে ফেলা যায়, কিন্তু প্রসেসর এর মামলায় এসে সবাই চিন্তায় পড়ে যান যে, ইনটেল না এএমডি? তো এই অবস্থায় অনেক সময় দোকানদার আপনার অসুবিধার সুযোগ গ্রহন করে এবং আপনাকে হয়তো এমন প্রসেসর ধরিয়ে দেয় যেটা আপনার জন্য ঠিক না। এবং পরবর্তীতে আপনার আফসোস করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকে না। তো চলুন আপনাকে আজ বুঝানোর চেষ্টা করি যে আপনার নির্দিষ্ট বাজেট এবং নির্দিষ্ট প্রয়োজন অনুসারে কোন প্রসেসরটি কেনা উত্তম হবে। বিস্তারিত আলোচনায় প্রবেশের পূর্বে কিছু জিনিস জানিয়ে দিচ্ছি, দেখুন আজকের এই প্রসেসর তুলনায় আমি কোন বেঞ্চমার্ক স্কোর এর সাথে তুলনা করতে যাব না। এবং আমি বলবো না যে ইনটেল প্রসেসর এর উমুক মডেল ভালো বা এএমডি এর তমুক মডেল ভালো। আমি যদি এই দিক থেকে তুলনা করার কথা ভাবি তবে লে আউট, আর্কিটেকচার, টেকনোলজি ইত্যাদি সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করার প্রয়োজন পড়বে। এবং এসকল বিষয় তুলনা করতে গিয়ে আপনি আরো বেশি কনফিউজ হয়ে পড়বেন। তাই আমি সহজ বাংলায় বোঝানোর চেষ্টা করবো যে, আপনার জন্য ইনটেল প্রসেসর ভালো হবে, না এএমডি প্রসেসর উপযুক্ত হবে। আজ আমরা তুলনা করবো ৩ টি পয়েন্ট এর সাথে।

  • দাম (Price)
  • পাওয়ার (Power)
  • কার্যক্ষমতা (Performance)

দাম (Price)

যদি আমরা দাম থেকে শুরু করে এদের তুলনা করতে যায় তবে আপনারা সকলেই হয়তো জানেন যে ইনটেল প্রসেসর এর দাম এএমডির তুলনায় একটু বেশি। একটি ১ থেকে ১০ পর্যন্ত ক্রমিক নাম্বার কাটা স্কেল এর কথা যদি কল্পনা করেন তবে ইনটেল এর দাম আয়ত্ত স্কেলের ৪ থেকে ১০ পর্যন্ত এবং এএমডির দাম ২ থেকে ৮ পর্যন্ত। এই অবস্থায় আপনি যদি পাশাপাশি তুলনা করেন তবে এএমডির প্রসেসর আপনি একটু সস্তায় পেয়ে যেতে পারেন। এই পয়েন্টের উপর ভিত্তি করে বলবো আপনি যদি একটি বাজেট ল্যাপটপ বা পিসি কেনার কথা ভাবেন তবে এই অবস্থায় আপনার এএমডি প্রসেসর কেনা উচিৎ হবে, ইনটেল এর সাথে তুলনা করতে গিয়ে। কেনোনা আপনি যখন কম দামের একটি ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ কিনতে যাবেন ইনটেল প্রসেসরের সাথে তখন এতোটা ভালো পারফর্মেন্স দেখতে পাবেন না যতোটা একটা কম দামের এএমডির প্রসেসর আপনাকে সরবরাহ করবে। মনে করুন আপনি ল্যাপটপ কেনার কথা ভাবছেন ২০ হাজার, ২৫ হাজার বা ২৬ হাজারের মধ্যে তবে এএমডি কেনা আপনার জন্য বেশি উপযুক্ত হবে। অথবা আপনি হয়তো একটি পিসি বিল্ড করার কথা ভাবছেন, কিন্তু আপনার কাছে বাজেট অনেক কম তবে এএমডি আপনার সঠিক পছন্দ হবে।

পাওয়ার (Power)

দ্বিতীয় বিষয়টি হলো পাওয়ার এর। এই পর্যায়ে এসে আমার উপরের সিদ্ধান্ত একদম উল্টে যায়। কারন এএমডি প্রসেসর অনেক বেশি পাওয়ার ক্ষয় করে ইনটেল প্রসেসর এর তুলনায়। এএমডির তুলনায় ইনটেলের চিপ ভোল্টেজ প্রায় ৫০% কম, তাই ইনটেল অনেক কম পাওয়ার ক্ষয় করবে। এই অবস্থায় আমার মতে আপনি যদি আপনার বাজেট সামান্য একটু বাড়াতে পারেন তবে মোটামুটি ৩০-৩৫ হাজারের আশেপাশে একটি ইনটেল প্রসেসরের ল্যাপটপ পেয়ে যাবেন, সেটা ইনটেল আই৩ হোক আর আই৫। এএমডিতে আপনি ভালো ব্যাটারি লাইফ পাবেন না। কিন্তু ডেক্সটপে যেহেতু ব্যাটারির চিন্তা নেই, তাই কম বাজেটের মধ্যে ভালো পারফর্মেন্স পাবার জন্য এএমডি আপনার জন্য ভালো হবে।

কার্যক্ষমতা (Performance)

বন্ধুরা এখন যদি কথা বলি হাই-এন্ড পারফর্মেন্স এর। মনেকরুন আপনি একটি ল্যাপটপ কিনতে চাচ্ছেন ৬০ বা ৭০ হাজার টাকার অথবা ১ লক্ষ টাকার, অথবা আপনি একটি হাই-এন্ড পিসি বিল্ড করার কথা ভাবছেন তো এই অবস্থায় বুদ্ধিমান হওয়ার প্রমান এটাতেই যে আপনি একটি ইনটেল প্রসেসর নির্ভর কম্পিউটার কিনুন। কেনোনা হাই-এন্ড এর অবস্থায় ইনটেল থেকে আপনি যে পারফর্মেন্স পাবেন তা এএমডি থেকে অনেক গুন বেশি।

আরেকটি বিষয় অনেক গুরুত্বপূর্ণ, মনেকরুন যদি ডেক্সটপ এর কথা বলি তবে আপনি যদি পরে আপনার প্রসেসর পরিবর্তন করার কথা ভাবেন তবে মাদারবোর্ডে যে প্রসেসর সকেট থাকে তা ইনটেলের জন্য বেশি অপশন পাবেন, এএমডির তুলনায়। আপনি যদি অনেক হাই-এন্ড কাজ করার কথা ভাবেন, মনে করুন আপনি সাউন্ড প্রোডাকশন করবেন বা ভিডিও প্রোডাকশন করবেন তবে এএমডির তুলনায় ইনটেল সর্বউত্তম হবে। যদি ল্যাপটপ এর কথা বলি তবে ৪০ হাজারের উপরের ল্যাপটপ গুলো প্রায় সবই পাওয়া যায় ইনটেল এর সাথে কারন এখানে এএমডির তেমন অপশনই থাকে না।

এখন মনে করুন আপনি একটি ডেক্সটপ বিল্ড করছেন শুধু গেমিং এর জন্য তবে আমার মতে আপনার জন্য এএমডি বেস্ট হবে। কেনোনা যদি কথা বলা হয় লো-এন্ড পিসি নিয়ে এবং আলাদা গ্রাফিক্স কার্ড ছাড়া তবে একটি কম দামের পিসিতেও ইনটেলের তুলনায় এএমডির গ্রাফিক্স ভালো দেখতে পাবেন। এবং এএমডির সাথে কম বাজেটের পিসিতেও মোটামুটি গেমিং করতে পারবেন।

এবার যদি মধ্যম বাজেটের গেমিং পিসির কথা বলেন তবে আমার সিদ্ধান্ত হলো আপনি একটি এএমডির একটু সস্তা প্রসেসর কিনে ফেলুন এবং প্রসেসর থেকে কিছু টাকা বাচিয়ে একটি ভালো জিপিইউ লাগিয়ে নিন। এবং এরকম করাতে আপনি ইনটেল থেকে কিছু বেশি এবং মোটামুটি ভালো গেমিং এবং গ্রাফিক্স পারফর্মেন্স পাবেন।

তো এই বিষয় গুলো একদম পানির মতো সহজ। আপনি যদি ভালো পারফর্মেন্স এর কথা বলেন তবে এতে কোন সন্দেহ নেই যে ইনটেলের পারফর্মেন্স এএমডি প্রসেসর থেকে অনেক ভালো। আপনি হাইয়ার এন্ড পিসির কথায় বলুন আর লোয়ার এন্ড পিসির কথায় বলুন। কিন্তু লোয়ার এন্ড এ যখন দামের সাথে তুলনা করা হয়, মনে করুন আপনার বাজেট ৪ টাকা, ১ থেকে ১০ এর স্কেলে। তো এই ৪ টাকাই আপনি যদি ইনটেল কেনার কথা ভাবেন তবে আপনি পাবেন ইনটেল এর সবচেয়ে নিচের মডেল এবং এএমডিতে পাবেন ইনটেল থেকে সামান্য ভালো পারফর্মেন্স ওয়ালা মডেল। এই ভাবে তুলনা করতে গিয়ে হয়তো এমনটা লাগবে যে এএমডির পারফর্মেন্স বেশি ভালো। কিন্তু আপনি যদি এএমডির ২ নম্বর পর্যায়ের অর্থাৎ সবচেয়ে নিচের পর্যায়ের প্রসেসর এর সাথে ইনটেল এর ৪ নম্বর এর তুলনা করেন (যেটাও ইনটেলের সবচেয়ে নিচের প্রসেসর) তবে ইনটেলে আপনি বেশি সুবিধা দেখতে পাবেন।

 

ইনটেল প্রসেসর, না এএমডি প্রসেসর

আমি আপনাকে আর বেশি দ্বিধার মধ্যে ফেলতে চাইনা। কেনোনা আপনি এমনিতেই অনেক দ্বিধার মধ্যে আছেন আগে থেকেই। চলুন এবার সকল সিদ্ধান্ত গুলো একত্র করা যাক। প্রথমত আপনার একটি বাজেট পিসি কেনা প্রয়োজন, তো বেশি অপশন নেই, সোজা এএমডি কিনে ফেলুন, সেটা ল্যাপটপ হোক আর ডেস্কটপ। আপনার যদি হাই-এন্ড প্রয়োজন তো বিনা দ্বিধা দণ্ডে ইনটেল নিয়ে ফেলুন। যদি গেমিং করতে চান এবং ডেস্কটপে, তবে এএমডি নিন কিছু টাকা জিপিইউ তে লাগিয়ে ফেলুন এতে অনেক ভালো গেমিং পারফর্মেন্স পাবেন। আর যদি অডিও ভিডিও এডিটিং করতে বা আরো হাই-এন্ড কাজ করতে চান তবে ইনটেল এবং যদি এমনটা চান যে সবকিছু মোটামুটি এভারেজ হবে তবে, ইনটেল আপনার জন্য বেস্ট হবে। আপনি ৩৫-৪০ হাজার ইনভেস্ট করলেই একটি ভালো মানের ইনটেল ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ কিনতে পারবেন। [কম্পিউটার প্রসেসর i3, i5, i7 এর বৃত্তান্ত জানুন – আপনি কোনটা কিনবেন?]

শেষ কথা

আপনি যদি পোস্টটির মূল ভাবনা অনুধাবন করতে পারেন তবে আশা করি আপনি আপনার জন্য সঠিক প্রসেসর নির্বাচন করতে পারবেন। এবং পরবর্তী সময়ে যখন পিসি কেনার কথা ভাববেন তখন প্রসেসর সংক্রান্ত বিষয়ে আপনাকে দ্বিধায় পড়তে হবে না। তাছাড়াও যদি সিদ্ধান্ত নিতে সমস্যা হয়ে যায়, যোগাযোগ করতে ভূলবেন না। আপনার যেকোনো প্রশ্ন আমাকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন নিচে। আর হাঁ, অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করতে একদমই ভুলবেন না।

0 Comments

Leave a reply

CONTACT US

We're not around right now. But you can send us an email and we'll get back to you, asap.

Sending
©2012 - 2020 Techwave.Asia All Rights Reserved.
or

Log in with your credentials

Forgot your details?